শিরোনাম :

10/trending/recent

Hot Widget

অনুসন্ধান ফলাফল পেতে এখানে টাইপ করুন !

এভাবেও ফিরে আসা যায়, এতটা অবাক করে!

ক্রীড়া ডেস্ক
এভাবেও ফিরে আসা যায়, এতটা অবাক করে! - চার বছর আগে বাড়ি যাওয়ার পথে ভয়ানক এক গাড়ি দুর্ঘটনায় মারা গেছেন কঙ্গোলিজ ফুটবলার হায়ানিক কাম্বা, এমন খবর ছড়িয়ে পড়ে। ২০১৬ সালে কাম্বা মারা যাওয়ার পর তাঁর তৎকালীন ক্লাব ভিএফবি হালসের পক্ষ থেকে বিবৃতিও দেওয়া হয়। সেখানে মৃত কাম্বার জন্য সম্মান প্রদর্শন এবং দোয়াও করতে জানানো হয়েছিল।
অথচ করোনাভাইরাসের এই আতঙ্কের মাঝেই সবাইকে অবাক করে আবার ফিরলেন হায়ানিক কাম্বা। জীবিত এই কঙ্গোলিজ ফুটবলার দিব্যি সুস্থ অবস্থায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন জার্মানিতে। এমন খবরে সবার চক্ষু ছানাবড়া হয়ে যায়। এরপরে ঘটনার গভীরে যেতে দেখা যায় কাম্বার মৃত্যুর খবর ছড়িয়েছেন তাঁর প্রথম স্ত্রী। আর এর মাধ্যমে ইনস্যুরেন্স থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন তাঁর স্ত্রী।
৩৩ বছর বয়সী কাম্বাকে নিয়ে জার্মান ট্যাবলয়েড দৈনিক বিল্ড প্রকাশ করেছে, চার বছর আগে মৃত বলে ঘোষিত হওয়া সাবেক শালকের যুব দলের ফুটবলার কাম্বাকে ওয়েস্টার্ন জার্মানিতে ডর্টমুন্ডের কাছে গেলসেনকিরচেন শহরে জীবিত পাওয়া গেছে।
এ খবর প্রকাশিত হওয়ার এক প্রতারণার অভিযোগে তদন্ত শুরু হয়েছে কাম্বার সাবেক স্ত্রীর বিরুদ্ধে। কারণ ২০১৬ সালে কাম্বার মৃত্যুর খবর প্রকাশিত হওয়ার পর মৃত স্বামীর জীবন বীমা থেকে ছয় অঙ্কের অর্থ উত্তোলন করে ফেলেছেন তাঁর স্ত্রী।



যদিও এর কিছুই জানতেন না সাবেক এই শালকের যুব দলের ফুটবলার। ফলে স্ত্রীর বিপক্ষে তদন্তে সাক্ষী হওয়ার জন্যও প্রস্তুত কাম্বা। এ নিয়ে জার্মান ট্যাবলয়েড বিল্ডে প্রসিকিউটর আনেত মিল্ক জানান, ‘কাম্বার স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা করা হয়েছে। যদিও সে সব অস্বীকার করেছে। এদিকে কাম্বা আমাদের জানিয়েছে, ‘‘২০১৬ সালের সেদিন তাঁর সঙ্গীরা কঙ্গোতে তাঁর সব কাগজপত্র, মোবাইল নিয়ে পালিয়ে যায়।’’ এই মুহূর্তে সে তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে সাক্ষী দিতে প্রস্তুত।’
২০১৮ সালে নাগরিকত্বের কোনো প্রমাণ না থাকায় কঙ্গোতে তাঁর থাকার উপর নিষেধাজ্ঞা আসে। তখন ২০১৮ সালে জার্মানিতে ফিরে অ্যাসাইলাম হিসেবে বাস করতে থাকেন কাম্বা। এখানে একটা এনার্জি কোম্পানিতে কেমিক্যাল টেকনিশিয়ান হিসেবে কাজ করতেন কাম্বা।
২০০৫ সালে পরিবারের সাথে প্রথমবারের মতো জার্মানিতে পালিয়ে আসেন ১৯ বছরের কাম্বা। এরপর শালকে যুব দলে রাইট-ব্যাক হিসেবে ফুটবল খেলতে থাকেন তিনি। যেখানে তাঁর সতীর্থ ছিলেন জার্মান জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক ও গোলরক্ষক ম্যানুয়েল ন্যুয়ার।



ঢাকা/কামরুল



from Risingbd Bangla News https://ift.tt/3fqPygQ
via IFTTT

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

Below Post Ad