পূর্বধলায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা,স্বামী আটক - Purbakantho

শিরোনামঃ

রবিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

পূর্বধলায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা,স্বামী আটক

শফিকুল আলম শাহীন: নেত্রকোনার পূর্বধলায় পারিবারিক কলহ ও যৌতুকের জেরে স্বামীর হাতে প্রাণ গেল টপি আক্তার (২৮) নামের এক গৃহবধূর। এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক স্বামী কুদরত আলীকে (৩৫) আটক করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শনিবার রাতে উপজেলার ধলামূলগাঁও ইউনিয়নের জামুদ গ্রামে। 

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বিগত ৯বছর আগে  উপজেলার জারিয়া ইউনিয়নের মেঘাপাড়া গ্রামের মৃত আবুল কাসেমের মেয়ে টপি আক্তারের বিয়ে হয় পাশ্ববর্তী ধলামূলগাঁও ইউনিয়নের জামুদ গ্রামের মৃত দেওয়ান আলীর ছেলে কুদরত আলীর সাথে। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই মোটা অঙ্কের যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে চাপ দিতে থাকেন স্বামী কুদরত আলী। যৌতুক আনতে  স্ত্রী অস্বীকার করলে কুদরত আলী প্রায়ই তার স্ত্রী টপিকে মারধর করে বাপের বাড়ি পাঠিয়ে দিতো।

নিহত টপির ভাই কাজল মিয়া জানান, বিয়ের সময় নগদ টাকাসহ দামী আসবাবপত্র দেওয়ার পরও যৌতুক লোভী বোনজামাই বোনের ওপর চালাত নির্যাতন। তাই বোনের সুখের কথা চিন্তা করে প্রায়ই বোন জামাইকে চাউলের বস্তাসহ সাধ্যমতো নগদ টাকাও দিতাম। 

গত কিছুদিন আগেও বোন জামাই কুদরত আলী আমার বোনকে পিটিয়ে একটি হাত ভেঙ্গে ফেলে। আমার বোন তার তিনটি সন্তানের কথা চিন্তা করে স্বামীর অসহ্য যন্ত্রনা সহ্য করেও বাঁচতে চেয়ে ছিল। কিন্তু তা আর হলো না। ঘাতক স্বামী কেড়ে নিল তার প্রাণ। তাকে পিটিয়ে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু নিশ্চিত করল ঘাতক।

পূর্বধলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ শিবিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে শনিবার  রাতেই কুদরত আলীর বাড়ি থেকে লাশ উদ্ধারসহ ঘাতক কুদরত আলীকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের ভাই কাজল মিয়া বাদী হয়ে  পূর্বধলা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। আসামী কুদরত আলীকে আদালতের মাধ্যমে জেল-হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। লাশ ময়না তদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন