আবাহনীর বিশাল হার - Purbakantho

শিরোনামঃ

মঙ্গলবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২২

আবাহনীর বিশাল হার

লিটন কুমার দাস যখন ২৩ রান করে আউট হলেন তখন আবাহনী লিমিটেডের স্কোর ৩৪/৫! তারকাবহুল দলটির এমন হাল শেষ কত আগে হয়েছিল গবেষণার বিষয়। ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে (ডিপিএল) প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে শুরুতেই বিপদে পড়া আবাহনী পরে আর কোমড় সোজা করে উঠতে পারেনি। 

মাত্র ১৩১ রানে গুটিয়ে গিয়ে শেষ পর্যন্ত ১৪২ রানে ম্যাচ হেরেছে দলটি। এদিকে, লিগে দিনের অপর ম্যাচে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের বিপক্ষে ৫৫ রানে হেরেছে রূপগঞ্জ টাইগার্স  ক্রিকেট ক্লাব। আরেক ম্যাচে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের বিপক্ষে ৭২ রানে হেরেছে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। সোমবার (১৮ এপ্রিল) মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আবাহনীর বিপক্ষে প্রথমে ব্যাটিং করে ২৭৩ রান তুলেছিল প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। 


স্বপ্নের ফর্মে থাকা এনামুল হক বিজয় আজ ৮৫ বলে ৫টি চার ৩টি ছয়ে ৭৭ রান করেছেন। মোহাম্মদ মিঠুন ৪৪ ও ইয়াসির আলি ৪৩ রান করেন। পরে জবাব দিতে নেমে মিরপুরের উইকেটে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের স্পিনারদের খেলতেই পারেননি তারকাবহুল আবাহনী। 

রাকিবুল ইসলাম, শেখ মেহেদি হাসান ও তাইজুল ইসলামের স্পিনে ৩৪ রানে পঞ্চম উইকেট হারিয়ে বসে আবাহনী। পরে আর কোমড় সোজা করে দাঁড়াতে পারেনি দলটি। অধিনায়ক মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত সাতে নেমে ৫৭ বলে ৭টি চার ৩টি ছয়ে ৬৫ রান না করলে লজ্জার রেকর্ডেই বুঝি আজ পড়তে হতো আবাহনীকে। শেষ পর্যন্ত ৩২.৪ ওভারে ১৩১ রানে গুটিয়ে গেছে দলটি।

 প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে নাসির হোসেন ৩৩ রানে ও রাকিবুল হাসান ১৮ রানে তিনটি করে উইকেট নিয়েছেন। দুটি করে উইকেট নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম ও শেখ মেহেদি হাসান। সাভারের বিকেএসপিতে দিনের অপর ম্যাচে ভারতীয় ক্রিকেটার এক পারভেজ রসুলের কাছেই মূলত হারল গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স! প্রথমে ব্যাটিং করে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের ২৭১ রানের বড় স্কোরে বড় অবদান রসুলের। 

পাঁচ নম্বারে নেমে ৬৪ বলে ৭টি চার ২টি ছয়ে ৭৩ রান করেন তিনি। নুরুল হাসান সোহান ৭২ বল খেলে ৬ চার ১ ছয়ে ৭৩ রান করেন। পরে বল হাতেও গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের সামনে বড় বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন রসুল। ৩৪ রান খরচায় গুরুত্বপূর্ণ সময়ে তুলে নিয়েছেন তিনটি উইকেট। বড় সংগ্রহ তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়েছে গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স।

 ধ্রুব শোরে চারে নেমে ৭৩ বলে ৫৫ রান করলেও বাকিদের মধ্য থেকে উপযুক্ত সঙ্গ দিতে পারেননি কেউ। গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ফরহাদ হোসেন (৩৭)। ৪৩.২ ওভারে ১৯৯ রানে গুটিয়ে যায় গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। বিকেএসপির চার নম্বার মাঠে সাব্বির রহমানের সেঞ্চুরিতে রূপগঞ্জ টাইগার্স ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে রানের পাহাড় গড়েছিল প্রথমে ব্যাটিং করা লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। অনেকদিন যাবত জাতীয় দলের বাইরে থাকা সাব্বির তিনে নেমে ১১১ বল খেলে ১২৫ রান করেন। 

ইনিংসটি সাজিয়েছেন ৮টি করে চার,  ছয়ে। এছাড়া চিরাগ ঝানি পাঁচে নেমে ৬৬ বলে ৪টি চার ৭টি ছয়ে ৯৫ রানে অপরাজিত ছিলেন। শেষ পর্যন্ত ৫০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩২৫ রান করেছেন। বড় রান পেরিয়ে জিততে হলে শুরু থেকেই দারুণ ব্যাটিং করতে হতো রূপগঞ্জ টাইগার্স ক্রিকেট ক্লাবকে। দলটি পিছিয়ে গেছে সেখানেই। ৫৯ রানে চতুর্থ উইকেট হারিয়ে শুরুতেই বিপদে পড়ে দলটি। মিডল অর্ডারে সাদ নাছিম অবশ্য দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন। তবে শুরুর মতো শেষের সময়টাতেও তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি অন্য কেউ। পাকিস্তানি ক্রিকেটার সাদ ছয় নম্বরে নেমে ১০৭ বল খেলে ১১৬ রান করে অপরাজিত ছিলেন। 

তার ইনিংসে চার ৯টি, ছক্কা ৪টি। রূপগঞ্জ টাইগার্স  ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৯ রান করেছেন শরিফুল্লাহ। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে রূপগঞ্জ টাইগার্স ক্রিকেট ক্লাবের ইনিংস থেমেছে ২৭০ রানে। 'লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের হয়ে ৪৭ রানে ৫ উইকেট নিয়েছেন নাবিল সামাদ।'


from Sarabangla | https://ift.tt/QoHns1L
via IFTTT

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন