শিরোনাম :

10/trending/recent

Hot Widget

অনুসন্ধান ফলাফল পেতে এখানে টাইপ করুন !

বেনজেমার হ্যাটট্রিকে রিয়ালের লন্ডন জয়

দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম মিনিটে নিজেদের ডি-বক্সের সামনে থেকে সজোরে বলে লাথি দিয়ে ক্যাসেমিরো বল পাঠিয়ে দিলেন চেলসির অর্ধে। গোললাইন ছেড়ে এগিয়ে এসে বুক দিয়ে বল ঠেকিয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে সামনেই থাকা ডিফেন্ডারের কাছে পাস দিতে গিয়ে চেলসি গোলরক্ষক এডুয়ার্ড মেন্ডি বল পাস করেন করিমে বেনজেমাকে। মধ্যমাঠ থেকে একটু দূরে বল পেয়ে মেন্ডিকে কাটিয়ে দূর থেকেই শট করে বল জালে জড়িয়ে করিম বেনজেমা পূর্ণ করেন হ্যাটট্রিক। আর ম্যাচের ৪৬ মিনিটে রিয়াল এগিয়ে যায় ৩-১ গোলের ব্যবধানে।

নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো চেলসির বিপক্ষে জয়ের স্বাদটাও পেল রিয়াল। প্রথমার্ধের ২৪ মিনিটে ভিনিসিয়াস জুনিয়রের পাস থেকে হেডে গোল করে দলকে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে নেন বেনজেমা। এর মিনিট তিনেক পর ডান দিক থেকে লুকা মদ্রিচের ভাসানো ক্রসে লাফিয়ে উঠে মাথা ছুঁইয়ে বল জালে জড়িয়ে দলকে এগিয়ে নেন ২-০ গোলে। এরপর প্রথমার্ধের শেষ দিকে এসে ৪০তম মিনিটে জর্জিনহোর অ্যাসিস্ট থেকে চেলসির হয়ে এক গোল পরিশোধ করেন কাই হার্ভটজ।

২০২০/২১ মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে শেষবার দেখা হয়েছিল চেলসি ও রিয়াল মাদ্রিদের। সেবার ঘরের মাঠে চেলসির সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করার পর দ্বিতীয় লেগে চেলসির কাছে ২-০ গোলের ব্যবধানে হেরেছিল জিনেদিন জিদানের রিয়াল। এবার বোধ হয় গেল মৌসুমের শোধটাই তুলে নিল অল হোয়াইটসরা। চেলসিকে তাদের মাঠেই ৩-১ গোলে হারিয়ে দিল করিম বেনজেমারা।

খাতা-কলমের হিসাব বলছে ম্যাচের ৫৭ শতাংশ বল দখলে রেখে মোট ২০টি শট নিয়েছে চেলসি। অন্যদিকে ৪৩ শতাংশ বল দখলে রেখে মাত্র ৮টি শট নিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। তবে তা স্বত্বেও চেলসির মাঠে তাদের শুরু থেকেই চেপে ধরা রিয়াল মাদ্রিদই এগিয়ে ছিল ম্যাচে।

শেষ ষোলতে উড়তে থাকা পিএসজিকে ঘরের মাঠে করিম বেনজেমার হ্যাটট্রিকেই ৩-১ গোলের ব্যবধানে হারিয়ে কোয়ার্টারের টিকিট কাটে রিয়াল। এবার চেলসিকেও একই ব্যবধানে হারাল ১৩ বারের ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা।

শুরুটা করেছিল চেলসি। ম্যাচের এক মিনিট গড়ানোর আগেই ডান থেকে রিস জেমসের ক্রস ধেয়ে এসেছিল রিয়ালের ডি-বক্সে তবে সে সময় ডি-বক্সে চেলসির কোনো খেলোয়াড় উপস্থিত না থাকায় আক্রমণটা কাজে লাগাতে পারেনি। এরপর ম্যাচের প্রথমার্ধে দুই পক্ষই করেছে একের পর এক আক্রমণ। ১০ মিনিটের মাথায় এগিয়ে যেতে পারতো রিয়াল। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় ক্রসবার। ফেদে ভালভার্দের কাছ থেকে পাওয়া বল নিয়ে চেলসির ডি-বক্সে ঢুকে শট নেন ভিনিসিয়াস জুনিয়র। চেলসির গোলরক্ষককে পরাস্ত করতে পারলেও ক্রসবারকে পরাস্ত করতে পারেননি ভিনিসিয়াস।

এরপর ২১তম মিনিটে এসে বাঁ দিক থেকে বল নিয়ে আক্রমণে ওঠে ভিনিসিয়াস। গতি দিয়ে চেলসির রক্ষণভাগকে পরাস্ত করে বল ক্রস করেন ডি-বক্সে, সেখান থেকে লাফিয়ে উঠে মাথা ছুঁইয়ে বল জালে জড়ান বেনজেমা। দুর্দান্ত এই গোলের রেশ কাটতে না কাটতেই ২৪তম মিনিটে বেনজেমা করে বসেন আরও একটি গোল। এবারে ডান দিক থেকে লুকা মদ্রিচের ভাসানো ক্রস আসে ডি-বক্সে, এবারেও লাফিয়ে উঠে বলে মাথা ছোঁয়ান বেনজেমা আর এবারেও একই ফলাফল। রিয়াল এগিয়ে যায় ২-০ গোলের ব্যবধানে।

খেলার ৩৩তম মিনিটের মাথায় ব্যবধান ৩-০ করতে পারতেন কার্ভাহাল তবে শেষ পর্যন্ত বলে ঠিকমতো পা ছোঁয়াতে না পারায় লিড বাড়ানো হয়নি সফরকারীদের। প্রথমার্ধের শেষ ৪০ মিনিটে মাথায় জর্জিনহোর ক্রস থেকে কাই হার্ভটজ মাথা ছুঁইয়ে ব্যবধান ২-১ করেন। এর মিনিট দুই পরে ব্যবধান আবারও দুই গোলের করতে পারতেন বেনজেমা। কিন্তু ১০ গজ দূর থেক লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নিলে হতাশ হয় রিয়াল।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই বেনজেমা অদ্ভুতুড়ে এক গোলে ব্যবধান ৩-১ করে রিয়াল। এরপর চেলসি আক্রমণের ধাচ বাড়ালে রিয়ালের জমাট বাধা রক্ষণকে আর ভাঙতে পারেনি। আর রিয়ালও পারেনি ব্যবধান বাড়াতে। এতেই শেষ পর্যন্ত ৩-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে রিয়াল।‘

দুই দল কোয়ার্টার ফাইনালের ফিরতি লেগে আগামী ১২ এপ্রিল এস্তাদিও সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে মুখোমুখি হবে।’

from Sarabangla | Breaking News | Sports | Entertainment https://ift.tt/9FET5Ha

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

Below Post Ad