রণলিয়ার বিয়ের পরও কাপূর-ভাট্ট পরিবারের এই দুই জনের মুখ দেখাদেখি বন্ধ - Purbakantho

শিরোনামঃ

বুধবার, ৪ মে, ২০২২

রণলিয়ার বিয়ের পরও কাপূর-ভাট্ট পরিবারের এই দুই জনের মুখ দেখাদেখি বন্ধ

বিনোদন ডেস্ক: সাতপাকে বাঁধা পড়েছেন বলিউডের হার্টথ্রব অভিনেতা রণবীর কাপূর এবং অভিনেত্রী আলিয়া ভাট্ট। এই বিয়ের কারণে কাছাকাছি এসেছে কাপূর-ভাট্ট পরিবার। তবে জানেন কি, এই দুই পরিবারের এমন দুই সদস্য আছেন, যাদের শত্রুতা কয়েক দশক পুরনো। 

কথাবার্তা তো দূর অস্ত, মুখ দেখাদেখিও বন্ধ ছিল এই দুই জনের। এমনকি, সংবাদমাধ্যমের কাছে একে অপরের পরিবারকে তুলোধনাও করেছিলেন তারা। আর কেউ নন, রণবীরের তুতো বোন কারিশ্মা কাপুর এবং আলিয়ার সৎ বোন পূজা ভাট্ট।

নব্বইয়ের দশকে এই দুই নায়িকার রেষারেষি চরমে পৌঁছেছিল। পরিবারের ছেলেদের সেলুলয়েডে অবাধ বিচরণ থাকলেও কাপূর পরিবারের মেয়েদের সিনেমার জগতে পা রাখায় বিশেষ নিষেধাজ্ঞা ছিল। কারিশ্মা কাপূরের মা ববিতা একপ্রকার জোর করেই মেয়েকে সিনেমার জগতে নিয়ে আসেন।

কারিশ্মার সমসাময়িক, সিনেমা মহলে পরিচিত আরও এক পরিবারের মেয়ে বলিপাড়ায় পা রাখেন। তিনি মহেশ ভাট্টের প্রথম পক্ষের মেয়ে পূজা। একটি-দু’টি সিনেমা করার পর থেকেই তিনি বলিউডের পরিচিত মুখ হয়ে ওঠেন।

১৯৯১ সালে আমির খানের বিপরীতে ‘দিল হ্যায় কে মানতা নহি’ সিনেমার সাফল্যের পরই তিনি ‘হিট’ নায়িকার তকমা পান। এর পর সঞ্জয় দত্তের বিপরীতে ‘সড়ক’ সিনেমাতে অভিনয় করেন পূজা। এই সিনেমাটিও বক্স অফিসে চরম সাফল্যের মুখ দেখে। ১৯৯১ সালেই বলিউডে পাকাপাকি জায়গা করে নেন পূজা।

একই সময়ে কারিশ্মার একের পর এক সিনেমা বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়ছিল। বলিপাড়ার পরিচিত পরিবারের সদস্য হওয়ার কারণে স্বাভাবিক ভাবেই প্রতিনিয়ত তুলনা করা হত পূজা-কারিশ্মাকে। এক বার এক সাক্ষাৎকারে পূজাকে জিজ্ঞাসা করা হয়ছিল, কারিশ্মা কেন অভিনেত্রী হিসেবে সফল হতে পারছেন না?

জবাবে পূজা জানিয়েছিলেন, কারিশ্মার মা-বাবা আলাদা থাকেন। ফলে কারিশ্মা কাজে মন দিতে পারছেন না। এছাড়াও কারিশ্মার মা তার সমস্ত কাজে ‘নাক গলান’ এবং তার মায়ের কারণেই কারিশ্মা অভিনেত্রী হিসেবে সফল হতে পারছেন না।

তখন এই কথা সত্যিই প্রচলিত ছিল যে, কারিশ্মার কোন সিনেমা করবেন বা কী পোশাক পরবেন, তা তার মা ববিতা নিজেই ঠিক করতেন। ‘ববিতার এই অভ্যাসের জন্য অনেক পরিচালকই কারিশ্মার সঙ্গে কাজ করতে রাজি ছিলেন না বলেও কানাঘুষো শোনা গিয়েছিল।,

পূজার সাক্ষাৎকার দেখে অগ্নিশর্মা হয়েছিলেন কারিশ্মা। ছেড়ে কথা বলেননি পূজাকে। করিশ্মা বলেন, ‘‘আমার মায়ের সম্পর্কে যে কথা রটানো হয়েছে তা সম্পূর্ণ অসত্য। আমার মা আমার কাজ নিয়ে নাক গলান না। আমার মা অন্য অভিনেত্রীদের মায়েদের তুলনায় অনেকটাই আলাদা।’’

কারিশ্মা আরও বলেন যে, আসলে পূজার মা-বাবার মধ্যেই কোনও সমস্যা আছে এবং পূজা নিজেই তার বাবা-মায়ের হাত থেকে রেহাই পাওয়ার চেষ্টা করছেন। পাশাপাশি, পূজার মা কিরণ ভাট্টের সঙ্গে মহেশের সম্পর্কে ফাটল এবং মহেশের সঙ্গে সোনির সম্পর্কের প্রসঙ্গও তুলে আনেন কারিশ্মা।

কারিশ্মার সাক্ষাৎকার প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই দুই অভিনেত্রীর মধ্যে দূরত্ব আরও বেড়ে যায়। মুখ দেখাদেখিও বন্ধ হয়। কোনও পরিচালকই তাদের এক সঙ্গে নিয়ে কাজ করার সাহস দেখাননি। রণবীর-আলিয়ার বিয়েতেও একে অপরকে এড়িয়েই যান দুই সাবেক অভিনেত্রী। ‘তবে দুই অভিনেত্রীর জীবনে কিছু মিলও রয়েছে।,

কারিশ্মা এবং পূজা দুই জনেই খুব তাড়াতাড়ি অভিনয় জগৎ ছেড়ে বেরিয়ে আসেন। পাশাপাশি, তাদের দুই জনেরই বিবাহিত জীবন সফল হয়নি। ‘অভিনেতা রণধীর কাপুর ও ববিতার প্রথম কন্যা কারিশ্মা অন্যদিকে মহেশ ভাট্ট ও তার প্রথম স্ত্রী কিরণ ভাট্টের কন্যা পূজা।,


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন