শিরোনাম :

10/trending/recent

Hot Widget

অনুসন্ধান ফলাফল পেতে এখানে টাইপ করুন !

টানা তৃতীয় বছর চিকিৎসা গবেষণায় বরাদ্দ ১০০ কোটি টাকা

ঢাকা: দেশের ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট উত্থাপন করা হয়েছে জাতীয় সংসদে। ছয় লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার এই বাজেট প্রস্তাবনায় বেশি অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে। 'কোভিডের অভিঘাত পেরিয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় প্রত্যাবর্তন’— শিরোনামের এই বাজেটে টানা তৃতীয় অর্থবছরে চিকিৎসা গবেষণা খাতে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার প্রস্তাবনা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৯ জুন) জাতীয় সংসদে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এ তথ্য জানান।

এ দিন জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী।

এ সময় তিনি জানান, প্রস্তাবিত বাজেটে উন্নয়ন ও অনুন্নয়ন ব্যয় মিলে বাজেটের আকার ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকা।

অর্থমন্ত্রী বলেন, চলতি অর্থবছরে প্রতিযোগিতার ভিত্তিতে ২৩টি গবেষক বা গবেষণা প্রতিষ্ঠান মৌলিক গবেষণা কার্যক্রম শুরুর জন্য নির্বাচিত হয়েছে। আগামী অর্থবছরেও এ তহবিলে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হবে।

তিনি বলেন, দেশে চিকিৎসা বিজ্ঞানের মৌলিক ও প্রায়োগিক গবেষণার অবকাঠামো তৈরি ও গবেষণা কার্যক্রম প্রবর্তন করা, গবেষণালব্ধ জ্ঞান দেশের স্বাস্থ্যসেবা, স্বাস্থ্য শিক্ষা, জনস্বাস্থ্য, অনুজীববিদ্যা, রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ইত্যাদির সার্বিক উন্নয়নে ও স্বাস্থ্য খাতের নতুন উদ্ভাবনের সক্ষমতা বৃদ্ধি ইত্যাদি লক্ষ্যকে সামনে রেখে আমরা বিগত অর্থবছরে ১০০ কোটি টাকার একটি ‘সমন্বিত স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান গবেষণা ও উন্নয়ন তহবিল’ গঠন করেছিলাম। এ তহবিলকে কার্যকরভাবে পরিচালনা করার লক্ষ্যে ‘সমন্বিত স্বাস্থ্য-বিজ্ঞান গবেষণা ও উন্নয়ন তহবিল কার্যক্রম পরিচালনা সম্পর্কিত নীতিমালা-২০২০’ প্রণয়ন করা হয়েছে এবং এ নীতিমালার আলোকে জাতীয় পর্যায়ের গঠিত কমিটি কাজ করছে।

তিনি আরও বলেন, চলতি অর্থবছরে প্রতিযোগিতার ভিত্তিতে ২৩টি গবেষক/গবেষণা প্রতিষ্ঠান মৌলিক গবেষণা কার্যক্রম শুরুর জন্য নির্বাচিত হয়েছে। আগামী অর্থবছরেও এ তহবিলে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হবে।

আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, প্রেক্ষিত পরিকল্পনা, জাতীয় স্বাস্থ্যনীতি ও ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত কৌশল ও কার্যক্রম অনুযায়ী আমরা স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও জনসংখ্যা খাতের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছি। এর অংশ হিসেবে চিকিৎসা শিক্ষায় উচ্চ বিনিয়োগ ও উচ্চতর প্রশিক্ষণের উপর গুরুত্ব আরোপ করা হচ্ছে। চিকিৎসা শিক্ষার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য চিকিৎসা শিক্ষার সব স্নাতকোত্তর ডিগ্রিকে এক প্ল্যাটফর্মের অধীনে নিয়ে আসা, পরীক্ষা পদ্ধতি আধুনিকীকরণ, শিক্ষকদের ক্রমাগত প্রশিক্ষণ, চিকিৎসা শিক্ষায় নিয়োজিত শিক্ষকদের গবেষণা জোরদার করা, বেসরকারি পর্যায়ে শিক্ষার মান নিশ্চিত করা ইত্যাদি কার্যক্রমকে আমরা অগ্রাধিকার দেব।,

তিনি বলেন, বেসরকারি মেডিকেল কলেজ, চিকিৎসা শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে সেবার মান নিশ্চিত করা এবং শিক্ষার ব্যয় জনগণের নাগালের মধ্যে রাখা, নার্সিং শিক্ষার আধুনিকায়ন ও দেশের প্রয়োজন অনুযায়ী যুগোপযোগী করার লক্ষ্যে সরকার নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে। নার্সিং কলেজের উন্নয়নের লক্ষ্যে আমরা ঢাকা নার্সিং কলেজ এক্রিডিটেসন চলতি অর্থবছরেই সম্পন্ন করব।,

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে প্রতিটি বিভাগে একটি করে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন এবং নার্সিং ইনস্টিটিউটকে নার্সিং কলেজে রূপান্তর করার কার্যক্রম চলমান রয়েছে। মেডিকেল শিক্ষা কার্যক্রমের উন্নয়নের জন্য ৮টি মেডিকেল কলেজে সিমোলেশন ল্যাব তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।,

উল্লেখ্য, ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে স্বাস্থ্যখাতে চার হাজার ১৩২ কোটি টাকা বাজেট বাড়ানোর প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গত অর্থবছরে (২০২১-২০২২) স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ ছিল ৩২ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা। যা এবার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৬ হাজার ৮৬৩ কোটি টাকায়।,

from Sarabangla https://ift.tt/lPFM39i

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

Below Post Ad