রানি এলিজাবেথের মৃত্যু, ১০ দিন যা হবে - Purbakantho

শিরোনামঃ

শুক্রবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২

রানি এলিজাবেথের মৃত্যু, ১০ দিন যা হবে

ব্রিটিশ রাজতন্ত্রের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘসময় সিংহাসনে ছিলেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। ৭০ বছর পর ব্রিটেনের কোনো রাজা বা রানির মৃত্যু হয়েছে। ব্রিটিশ রানির মৃত্যুতে কী কী আনুষ্ঠানিকতা পালন করা হতে পারে— জেনে নেওয়া যাক। রানির মৃত্যুর দিন বাকিংহাম প্যালেস থেকে আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগে প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাসকে ব্যক্তিগতভাবে রানির ব্যক্তিগত সচিব মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন।
প্রধানমন্ত্রী তাৎক্ষনিক খবরটি মন্ত্রিসভা সচিব এবং প্রিভি কাউন্সিল কার্যালয়ে পৌঁছে দেন। এর পরপরই রানির মৃত্যুর খবর প্রকাশ্যে ঘোষণা করা হয়। রানির মৃত্যুর খবর প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গেই রাজকীয় বাসভবন, হোয়াইটহল এবং অন্যান্য সরকারি ভবনে ব্রিটিশ পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়। রাজপরিবারের ওয়েবসাইটে রানির মৃত্যুর একটি সংক্ষিপ্ত বিবৃতি প্রকাশ করা হয়। সরকারি ওয়েবসাইটগুলোর হোমপেইজে কালো ব্যানার যুক্ত করা হয়। এদিকে বাকিংহাম প্যালেসের ঐতিহ্য হলো— রেলিং-এ রানির মৃত্যুর বিবৃতিটি ফ্রেম আকারে টাঙিয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া। ওয়েস্টমিনস্টার অ্যাবে এবং সেন্ট পলস ক্যাথেড্রাল রানির মৃত্যুর খবর জানাতে ঘণ্টা বাজানোর রেওয়াজ রয়েছে। হাইড পার্ক এবং টাওয়ার হিলে আনুষ্ঠানিক স্যালুট প্রদান করার কথা রয়েছে। ,



এসময় গোটা দেশ এক মিনিটের নীরবতা পালন করে থাকে। রানি মৃত্যুর পরদিন এদিন শুরুতে অ্যাকসেসন কাউন্সিল নতুন রাজার নাম ঘোষণার জন্য সকাল ১০টায় সেন্ট জেমস প্যালেসে বৈঠকে বসবে। সেন্ট জেমস প্যালেসের একটি বারান্দা থেকে জনসম্মুখে নতুন রাজার নাম পাঠ করা হবে। লন্ডনের রয়েল একচেঞ্জে আরও একটি ঘোষণায় রাজার নাম পাঠ করা হবে। বিকেলে নতুন রাজা প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদ, বিরোধী দলের নেতা, ক্যান্টারবারির আর্চবিশপ এবং ওয়েস্টমিনিস্টারের ডিনকে সাক্ষাৎ দেবেন। এদিকে, একই দিন পার্লামেন্টে রানির প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হবে। সেসময় থেকে ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত পতাকা আবার পূর্ণ উত্তোলিত রাখা হবে।,



২৪ ঘণ্টা পর আবার পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে। দ্বিতীয় দিন দ্বিতীয় দিনে রানির কফিন বালমোরাল প্রাসাদ থেকে সড়কপথে হলিরুডহাউসের প্রাসাদে নিয়ে যাওয়া হবে। তৃতীয় দিন এদিন হলিরুড থেকে সেন্ট জাইলস ক্যাথেড্রাল পর্যন্ত রয়্যাল মাইলে রাজপরিবারের সদস্যদের অংশগ্রহণের জন্য একটি শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হবে। শোভাযাত্রার পর সেন্ট জাইলস ক্যাথেড্রাল ২৪ ঘণ্টা জনসাধারণের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য রানির কফিন রাখা হবে। এদিকে রাজা চার্লস শোক প্রস্তাব গ্রহণের জন্য ওয়েস্টমিনস্টার প্রাসাদে যাবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তার পরে এডিনবার্গে যাওয়ার কথা রয়েছে তার। ব্রিটিশ সার্বভৌম হিসেবে তার প্রথম আনুষ্ঠানিক কাজ হবে চাবি গ্রহণ অনুষ্ঠানের জন্য হলিরুডহাউসের প্রাসাদে যাওয়া। তারপর সেন্ট জাইলস ক্যাথেড্রালে যাবেন তিনি।,



সেখানে তার প্রথম সাক্ষাৎপ্রার্থী হবেন স্কটল্যান্ডের ফার্স্ট মিনিস্টার। সেসময় তিনি স্কটিশ পার্লামেন্টের শোক প্রস্তাব গ্রহণ করবেন। চতুর্থ দিনে এদিন সন্ধ্যায় রানির কফিন এডিনবার্গ ওয়েভারলি স্টেশনে নিয়ে যাওয়া হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। রাজকীয় ট্রেনে করে রানির কফিন পরের দিন সকালে লন্ডনের সেন্ট প্যানক্রাস স্টেশনে পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে। একইদিন রাজা চার্লস উত্তর আয়ারল্যান্ডে উড়ে যাবেন, যেখানে তিনি হিলসবরো ক্যাসেলে শোকবার্তা গ্রহণ করবেন। প্রার্থনার জন্য বেলফাস্টের সেন্ট অ্যানস ক্যাথেড্রালে যোগ দেবেন তিনি। বাকিংহাম প্যালেস থেকে ওয়েস্টমিনিস্টার হল পর্যন্ত প্রয়াত রানির কফিন নিয়ে শোভাযাত্রার জন্য একটি মহড়া অনুষ্ঠিত হবে। পঞ্চম দিন এই দিনটিতে রানির কফিনটি বাকিংহাম প্যালেসে পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে।,



সেখান থেকে ওয়েস্টমিনিস্টার হলে রানির মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে। এদিন থেকে জনসাধারণের শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য পাঁচ দিন রানির কফিন ওয়েস্টমিনিস্টার হলে রাখা হবে। এই পাঁচ দিন দৈনিক ২৩ ঘণ্টা রানির কফিন সাধারণের দেখার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। ষষ্ট দিন এদিন বিশেষ কোনো আনুষ্ঠানিকতা হবে না বলে ধারণা করা হচ্ছে। সপ্তম দিন এদিন রাজা চার্লস কার্ডিফের লাল্যান্ডফ ক্যাথেড্রালের একটি শোক সভায় যোগ দেবেন, পরে তিনি ওয়েলস সরকারের শোকবার্তা গ্রহণ করবেন। এদিন রানির কফিন সাধারণের শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য ওয়েস্ট মিনিস্টার হলে থাকবে। অষ্টম দিন এদিন রাজা চার্লস বিভিন্ন রাজ্য এবং দেশের গভর্নর জেনারেল এবং প্রধানমন্ত্রীদের ইংল্যান্ডে স্বাগত জানাবেন। নবম দিন এদিনটি রানির শেষকৃত্যের আগের দিন।,



এদিন সন্ধ্যায় রাজা চার্লস অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় যোগদানকারী বিদেশী রাজপরিবারদের স্বাগত জানাবেন। দশম দিন রানির শেষকৃত্য ওয়েস্টমিনস্টার অ্যাবেতে অনুষ্ঠিত হবে। রানির কফিন ওয়েস্টমিনস্টার হল থেকে অ্যাবেতে নিয়ে যাওয়া হবে। সারা দেশে দুই মিনিট নীরবতা পালন করা হবে। একঘণ্টার আনুষ্ঠানিকতা শেষে অ্যাবে থেকে হাইড পার্কে কফিন নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে কুচকাওয়াজের মাধ্যমে উইন্ডসর ক্যাসেলে রানির কফিন নিয়ে যাওয়া হবে। উইন্ডসর ক্যাসেলে শেষকৃত্যের আনুষ্ঠানিকতা শেষে সেন্ট জর্জ চ্যাপেলে আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে রাজকীয় ভল্টে রানির কফিন প্রবেশ করা হবে।,



The post appeared first on Sarabangla http://dlvr.it/SY0xdd

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন